জাতীয়

হাটহাজারিতে তরুণদের পাশে দেশের শীর্ষ আলেমরা

2020/09/18/_post_thumb-2020_09_18_06_23_06.png

দেশের প্রাচীনতম বৃহৎ দ্বীনি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান উম্মুল মাদারিস দারুল উলূম মুঈনুল ইসলাম হাটহাজারী মাদরাসার বর্তমান উত্তপ্ত পরিস্থিতিতে দেশের শীর্ষ উলামা-মাশায়েখগণ উদ্বেগ প্রকাশ করে বিবৃতি দিয়েছেন।

বৃহস্পতিবার (১৭ সেপ্টেম্বর) সন্ধ্যায় মাওলানা ফজলুল করীম কাসেমী স্বাক্ষরিত বিবৃতিতে তারা বলেন, সম্প্রতি বিভিন্ন অনিয়মের বিরুদ্ধে ছাত্রদের শান্তিপূর্ণ আন্দোলনকে কেন্দ্র করে হাটহাজারী মাদরাসায় যে পরিস্থিতির সৃষ্টি হয়েছে, তা নিরসনের জন্য মাদরাসার শূরা কমিটিই সর্বময় ক্ষমতার অধিকারী। সুতরাং শূরার মাধ্যমেই সকল সমস্যার সমাধান করতে হবে। তবে, দারুল উলূম মুঈনুল ইসলাম হাটহাজারী মাদরাসার মহাপরিচালক আল্লামা শাহ আহমদ শফীর প্রতি শ্রদ্ধা বজায় রেখে ছাত্রদের যৌক্তিক দাবি মেনে নিতে হবে।

উলামা-মাশায়েখগণ বলেন, এক্ষেত্রে সরকার বা প্রশাসনের কোন ধরনের হস্তক্ষেপ দেশবাসী মেনে নিবে না।

উলামা-মাশায়েখগণ আরো বলেন- অত্যন্ত দু:খজনক বিষয় যে, দেশের শীর্ষ দ্বীনি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান এবং আল-হাইয়্যাতুল উলইয়ার আসন্ন কেন্দ্রীয় পরীক্ষার অন্যতম মারকাজ হাটহাজারী মাদরাসাকে একটি অগ্রহণযোগ্য খোঁড়া অজুহাত দেখিয়ে সরকার কর্তৃক বন্ধ ঘোষণা দেওয়া মাদরাসার অভ্যন্তরে অনিয়মকে মদদ দেওয়ার নামান্তর। সরকার প্রদত্ত স্বীকৃতির প্রজ্ঞাপনে উল্লেখিত দারুল উলূম দেওবন্দের অষ্ট মূলনীতির সম্পূর্ণ পরিপন্থী। আমরা অনতিবিলম্বে সরকারকে এই ভুল সিদ্ধান্ত প্রত্যাহার করার জন্য জোর দাবি জানাচ্ছি।

উলামা-মাশায়েখগণ আরো বলেন, আমরা পরিষ্কার বলে দিতে চাই, একটি কওমী দ্বীনি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের অভ্যন্তরীণ অনিয়মকে জিইয়ে রাখতে সরকারের এ ঘৃণ্য পদক্ষেপ সারা দেশের কওমী অঙ্গনকে উত্তপ্ত ও ক্ষুব্ধ করে তুলবে।

বিবৃতিতে স্বাক্ষর করেন, আল্লামা নূর হোসাইন কাসেমী, আল্লামা আতাউল্লাহ হাফেজ্জী, দেশের শীর্ষ আলেম মাওলানা নূরুল ইসলাম জেহাদী, অধ্যক্ষ মিজানুর রহমান চৌধুরী (দেওনার পীর), মাওলানা উবায়দুল্লাহ ফারুক, মাওলানা মাহফুজুল হক, মাওলানা আবদুর রব ইউসুফী, মাওলানা জুনায়েদ আল-হাবীব, মাওলানা আব্দুল আউয়াল (নারায়ণগঞ্জ), মাওলানা মুজিবুর রহমান হামিদী, মাওলানা হেলাল উদ্দিন (ফরিদপুর), মুফতী কামরুজ্জামান (ফরিদপুর), মাওলানা হাবীবুল্লাহ মিয়াজী, মাওলানা বাহাউদ্দীন যাকারিয়া, মাওলানা মুঞ্জুরুল ইসলাম আফেন্দী, মাওলানা নাজমুল হাসান, মুফতী মনির হোসাইন কাসেমী, মাওলানা মামুনুল হক, মাওলানা খালেদ সাইফুল্লাহ আইয়ূবী, মাওলানা হাসান জামিল, মাওলানা আবুল কালাম, মাওলানা শওকত হোসেন সরকার (নরসিংদী), মাওলানা মাসউদুল করীম (গাজীপুর), মাওলানা লেহাজ উদ্দিন (গাজীপুর), মাওলানা সাঈদ নূর (মানিকগঞ্জ), মাওলানা লোকমান মাজহারী,

মাওলানা হামিদ জহিরী, মুফতী আব্দুর রহিম (নরসিংদী), মাওলানা নূর মুহাম্মদ কাসেমী, মাওলানা মুসা বিন ইজহার, মাওলানা ফয়সাল আহমদ, মাওলানা আব্দুল্লাহ (সাভার), মাওলানা বশির আহমদ (মুন্সীগঞ্জ), মাওলানা আলী আকবর, মাওলানা ইয়াকুব ওসমানী (বি-বাড়ীয়া), মাওলানা শামসুল ইসলাম জিলানী (কুমিল্লা), মাওলানা সাখাওয়াত হোসাইন (খুলনা), মাওলানা সানাউল্লাহ মাহমূদী (বরিশাল) প্রমুখ।

মন্তব্য